শিরোনাম

[getTicker results="10" label="random" type="ticker"]

গুরু তোমায় হাজারো সালাম। শফিক রহমান



তামাদ্দুন২৪ডটকম:

প্রিয় কবির জন্মদিনে কবিকে জানাই হাজার সালাম

আমাদের মুহিব খান।
অসাধারণ কাব্য শক্তির অধিকারি মুহিব খান। তার প্রতিটি গানে রয়েছে জাতীকে জাগ্রত করার ম্যাসেজ। মুহিব খানের কবিতায় শুধু জটিল জটিল কুটিল কুটিল শব্দ খেলা করে না। কিছুটা বিপ্লবের দাওয়াতও থাকে। তিনি প্রত্যয়ী ও বলিষ্ঠ লেখনীর মাধ্যমে মানুষকে মুক্তিসংগ্রামে অনুপ্রাণিত করছেন, জাগ্রত করছেন জাতীয়তাবোধ। তার কলম শাসকের অস্ত্রের চেয়ে বেশি শক্তিমান । তাঁর কবিতায় জাতি জাগানিয়া মনোভাবের কারণে জাতি আজ তাঁকে জাগ্রত কবি নামে আখ্যায়িত করে ।
তার গান "ইঞ্চি ইঞ্চি মাটি" ইসলামপ্রিয় তাওহিদী জনতার জাতীয় সংগীত। "আবার যুদ্ধ হবে" শত্রুর বিরুদ্ধে আমাদের লড়তে অনুপ্রাণিত করে। তার "দিন বদলের দিন এসেছে" ধ্বংসস্তূপে দাড়িয়েও আমাদেরকে কোমড় সোজা করে বুক টান দিতে সাহস যোগায় । হায়ানাদের রক্ত চক্ষুকে উপেক্ষা করে তিনি লিখেছেন "এটা বাংলাদেশ এটা সিকিম নয়"। তরুণদের জাগ্রত করতে তিনি লিখেছেন " জাগো হে জওয়ান জাগো জাগো হে তরুন"। আলোচিত গান " কেন? " রচনা করে সকল বাম রাম তথাকথিত প্রগতিবাদীদের চপেটাঘাত করেছেন। কত সুন্দর ও বলিষ্ঠ তার শব্দের গাথুনী

'স্বার্থের হাত' নাড়তেও পারে
আইনের কল-কাঠি
আবার রক্তে লাল হতে পারে
আমার দেশের মাটি
ক্লাইভের' সাথে হতে পারে ফের
'মীরজাফরের' সন্ধি
'বিদ্রোহী কবি' হতে পারে ফের
লৌহ কপাটে বন্দী
এই পীরদের মাটি, বীরদের ঘাটি,
শহীদের বাংলায়
জনতার ভোটে, কি-বা ভোট লুটে
যে-ই যাক ক্ষমতায়-
নাস্তেনাবূদ হয়ে যাবে-
যদি 'ইসলাম' ভুলে যায়"

কুরআনুল কারীমের কাব্যানুবাদ করে বিশ্ব দরবারে বাংলা ভাষাকে এক উচ্চ মাত্রায় আসীন করেছেন। সীরাতের উপর "দাস্তানে মোহাম্মাদ" কবির অনবদ্য সৃষ্টি। এটি বাংলা ভাষায় সিরাত চর্চার এক নব সংযোজন। সাহিত্যের প্রতিটি শাখায় তিনি নিজের মত করে বিচরণ করে যাচ্ছেন। তার লিখিত সংগীতগুলো বাংলাভাষীদের নিকট "মুহিব সংগীত" নামে ব্যাপক পরিচিতি পেতে যাচ্ছে। বর্তমান হায়ানাদের ইসলাম বিদ্বেষী কর্মকান্ড দেখে তিনি ইতিপূর্বে আচঁ করতে পেরেছিলেন ইসলামের উপর অচিরেই আঘাত আসবে তাই তিনি লিখেছিলেন

"বাংলাদেশের সামনে ভীষণ দুঃসময়!
মোল্লারা সব এক হয়ে যাও, নেই সময়!
শত্রু যখন আসবে নিয়ে মৃত্যু ভয়!
দেখবে না- গা'য় কোন আতরের গন্ধ কার।

ইমাম আলেম পীর মাশায়েখ সত্যিকার।
ছাত্র মুরীদ ভক্তরা হও এক কাতার।
সামনে বিপদ! সব দিকে পথ অন্ধকার।
ডাকছে মিছিল, দাও খুলে দিল বন্ধ কার!

দেশ জাতি আর দীন নিয়ে দুশমন খেলে।
তোমরা হেথায় আপন ভাইকে দাও ঠেলে!
নাও টেনে নাও- হিংসা বিভেদ সব ফেলে।
আজ ভুলে যাও- কার সাথে কোন দ্বন্দ্ব কার।

তিনি আমাদের মানবতার কবি। তিনি বিদ্রোহী, তিনি সংগ্রামী, তিনি জাতি জাগানিয়া জাতীয় কবি।
তাই এই সময়ে আমার কাছে খানই শ্রেষ্ট কবি। খানই সেরা কবি।

মানুষ হিসেবে তাঁর সমালোচনা হতেই পারে। হোক। হাজার সমালোচনার ভীড়েও বাংলাদেশের ইসলামী সঙ্গীত জগতে খানই অনন্য। খানই শ্রেষ্ঠ।
আমারতো মনে হয়, এই প্রজন্মে এমন করে দরদ ভরা কন্ঠে আর কেউ মুক্তির ডাক দিতে আসবে না, তুমুল বিদ্রোহী কন্ঠে এভাবে জাগাতেও আসবে না কেউ।
যিনি আমাদের প্রাণের কথা বলেন, তার প্রাণ কাঁদাতে আমি প্রস্তুত নই। তার যা কিছু ভালো, ভালো। আর যা কিছু মন্দ তাত মন্দই। তবুও তিনি আমাদের গৌরব। কাব্যে তিনিই আমাদের প্রেরনার উৎস।
গুরু তোমায় হাজারো সালাম।

লেখক: ফেসবুক সেলিব্রেটি। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য