শিরোনাম

[getTicker results="10" label="random" type="ticker"]

চট্টগ্রাম সফরে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের নেতৃবৃন্দ


তামাদ্দুন২৪ডটকম: আকাবির ও আসলাফের রেখে যাওয়া আমানত, দারুল উলুম দেওবন্দের রাজনৈতিক প্লাটফর্ম, হক্কানী আলেমদের পতাকাবাহী সংগঠন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের নেতৃবৃন্দ কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে চট্টগ্রাম উত্তর জেলায় ব্যাপক সফর ও বিভিন্ন প্রোগ্রামে অংশ নেন। ২০ অক্টোবর জমিয়ত নেতৃবৃন্দ সকালে হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক শায়খুল ইসলাম আল্লামা আহমদ শফী হাফিজাহুল্লাহ এর দোয়া নিয়ে চট্টগ্রামে দাওয়াতি সফরের যাত্রা শুরু করেন।

এছাড়াও হেফাজত মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী হাফিজাহুল্লাহ, আল্লামা শেখ আহমদ হাফিজাহুল্লাহ ও মুফতী জসিম উদ্দীন সাহেবের সাথে সৌজন্যে সাক্ষাৎ করেন ও দেশের বিভিন্ন পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন।

দুপুর ১২ টার দিকে জমিয়ত নেতৃবৃন্দ চট্টগ্রাম জামিয়া ইসলামিয়া ওবাইদিয়া নানুপুর মাদ্রাসায় তাশরীফ নেন এবং মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা শাহ সালাহ উদ্দীন সাহেব সহ বরণ্যে আলেমে দ্বীনের সাক্ষাৎ করেন। নানুপর মাদ্রাসার দুই সাবেক মুহতামিম আল্লামা শাহ সোলতান আহমদ নানুপুরী রহ. ও আল্লামা শাহ জমীর উদ্দিন রহ. এর কবর জিয়ারত করেন।

এদিকে পূর্ব থেকেই দুপুরের আহারের দাওয়াত দিয়ে রাখেন বাবুনগর মাদ্রাসা কতৃপক্ষ। নানুপুর মাদ্রাসা থেকে রওনা হয়ে তাঁরা বাবুনগর মাদ্রাসার দিকে রওনা হন এবং সেখানে জোহরের নামাজ আদায় করেন। নামাজ শেষে বাবুনগর মাদ্রাসার মুহতামিম মুজাহিদে মিল্লাত আল্লামা শাহ মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী হাফিজাহুল্লাহ এর সাথে সৌজন্যে সাক্ষাত করেন এবং দীর্ঘক্ষণ মতবিনিময় করেন। এ সময় তিনি জমিয়ত নেতৃবৃন্দ কে সর্বদা হকের উপর অটল অবিচল থাকার নির্দেশনা প্রদান করেন।

জমিয়ত নেতৃবৃন্দ সাথে সাথে মাদ্রাসার সহকারী পরিচালক মাওলানা আইয়ুব বাবুনগরী, সদ্য নিয়োগপ্রাপ্ত মুহাদ্দিস বাহরাইন ডিসকভার-এ ইসলাম এর পরিচালক মাওলানা শায়খ হারুন আজিজ নদভী, তরুণ আলেম মোহাম্মদ মোহাম্মদ আজিজী, মাওলানা বরকত উল্লাহ সহ প্রমুখ ওলামায়ে কেরামের সাথে সাক্ষাত ও মতবিনিময় হয়।

বিকাল সাড়ে তিনটার দিকে জমিয়ত নেতৃবৃন্দ নাজিরহাট বড় মাদ্রাসায় আগমন করেন। নাজিরহাট বড় মাদ্রাসার মুহতামিম আল্লামা শাহ ইদ্রিস সাহেব দা.বা., মাদ্রাসার সহকারী পরিচালক ও প্রধান মুফতী আল্লামা মুফতী হাবিবুর রহমান কাসেমী সহ আলেম ওলামাদের সাথে জমিয়তের অগ্রগতির জন্য আলোকপাত করেন।

বিকাল ৫ টার দিকে ছাত্র জমিয়ত বাংলাদেশ ফটিকছড়ি উপজেলা শাখা কতৃক আয়োজিত আলোচনা সভা ও কাউন্সিল অধিবেশনে যোগদান করেন।

এ সময় বক্তারা বলেন, আমরা যারা দারুল উলুম দেওবন্দের চিন্তা-চেতনা ও আদর্শের অনুসারী তাঁরা হযরত শায়খুল হিন্দ রহ. এর সন্তান। শায়খুল হিন্দের উত্তরসুরী হিসেবে আমাদের কাজ হচ্ছে সকল অন্যায়ের প্রতিবাদ করা। সাদা কালো উকাবের ঝান্ডাধারী, হক্কানী ওলামায়ে কেরামের পতাকাতলে নিজেদের শরীক করে এদেশের ইসলাম, দেশ, জাতি, রাষ্ট্র ও মানবতার জন্য নিজেকে বিলিয়ে দেয়া। ইসলামের জন্য নিজের রক্ত দিতে এবং সর্বদা শাহাদাতের তামান্না বুকে ধারণ করে কাজ করার আহবান জানান।

এ সময় জমিয়ত নেতৃবৃন্দ সম্প্রতি ভোলায় পুলিশের গুলিতে শহীদ হওয়া ভাইদের আত্নার মাগফিরাত কামনা করেন এবং অবিলম্বে ভোলার পুলিশ জেলা সুপারের বহিস্কার এর দাবি জানান।

জমিয়ত নেতৃবৃন্দ বলেন, জনগণের টাকায় পরিচালিত প্রশাসনের কোন অধিকার নেই ইসলামের জন্য নিবেদিতপ্রাণ কোন আলেমের উপর গুলি চালানো। ২৪ ঘন্টার দোষীদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং ফেইসবুকে রাসূল সা. কে কটাক্ষ করে স্ট্যাটাস দানকারী ঐ যুবকের গ্রেফতার এবং ইসলাম ও মহানবী সা. কে কটাক্ষকারীদের ব্লাসফেমী আইন তথা মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে সংসদে আইন পাশের দাবি জানান।

ছাত্র জমিয়ত ফটিকছড়ি উপজেলার প্রোগ্রাম শেষে জমিয়ত নেতৃবৃন্দ চট্টগ্রাম জেলা জমিয়তের রাহবর ও কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সভাপতি মাওলানা আবদুর রহীম ইসলামাবাদীর বাসায় রাত্রের খাবারের আতিথেয়তা গ্রহণ করেন এবং তাঁর প্রতিষ্ঠিত সুয়াবিল তালিমুল ইসলাম বালিকা মাদ্রাসা পরিদর্শন করেন।

হাটহাজারী মাদ্রাসার পৃষ্টপোষক কুতুবুল আখতার আল্লামা জমির উদ্দীন রহ. ও মুফতীয়ে আজম মুফতী আহমদুল হক সাহেব রহ. এর স্মৃতিধন্য এলাকা পূর্ব সুয়াবিল ভাঙ্গাদিঘীরপাড় অবস্থিত দৃষ্টিনন্দন জামে মসজিদে এশার নামাজ আদায় করেন। এবং এলাকার দ্বীনদার, আলেম ওলামা ও সর্বস্তরের মানুষের সাথে কুশল বিনিময় করে হাটহাজারীর উদ্দেশ্যে রওনা হন এবং সেখানে রাত্রিযাপন করেন।
পরদিন চট্টগ্রাম ফতেপুর মাদ্রাসা,শুলকবহর মাদ্রাসা,মোজাহেরুল উলুম মাদ্রাসা সহ চট্টগ্রামের উল্ল্যেখযোগ্য মাদ্রাসায় সফর করেন।
বিকেলে মুফতি ওয়াক্কাস সাহেব ঢাকার উদ্যোশ্যে রওনা হন।
জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের বাংলাদেশের সভাপতি, সাবেক ধর্মপ্রতিমন্ত্রী ও সংসদ সদস্য মুফতী মুহাম্মদ ওয়াক্কাসের নেতৃত্বে দাওয়াতি এ কাফেলায় সাথে ছিলেন জমিয়তের সহ সভাপতি মাওলানা আবদুর রহীম ইসলামাবাদী, মহাসচিব মুফতী শেখ মুজিবুর রহমান, যুগ্ন মহাসচিব মাওলানা ড. মুহিউদ্দীন ইকরাম,মাওলানা জায়নুল আবিদীন, মাওলানা মাহমুদুল হাসান জিহাদী, মাওলানা খলীলুর রহমান, মাওলানা কাসেম ইসলামাবাদী, মাওলানা হাফেজ মুহাম্মদ ইসলামাবাদী, হাজী এমদাদ, হাফেজ আহমদ ইসলামাবাদী, হাফেজ বুরহান উদ্দীন প্রমুখ।
পরদিন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সহ-সভাপতি মাওলানা আবদুর রহীম ইসলামাবাদী,মহাসচিব মুফতি শেখ মুজিবুর রহমান , যুগ্ন-মহাসচিব মাওলানা ডক্টর মহিউদ্দিন ইকরাম সন্দ্বীপ সফর করেন,এবং একটি দ্বীনি মাহফিলে অংশগ্রহন করেন।
সুত্র: Ahmod Babor

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ