শিরোনাম

[getTicker results="10" label="random" type="ticker"]

ইমরান খানের পদত্যাগের ঘোষনা এখন সময়ের ব্যাপার


তামাদ্দুন২৪ডটকম: পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন যে, তিনি পদত্যাগ করবেন। তবে তিনি কোন ভিত্তিতে পদত্যাগ করবেন সে বিষয়ে স্পস্ট করে কিছু জানাননি।

ইমরান খান বলেন, আমি আগেই ভবিষ্যদ্বাণী করেছি, এমন একটি সময় আসবে যখন পুরো পাকিস্তানের সমস্ত দুর্নীতিবাজরা একত্রিত হবে। এসময় তিনি আক্ষেপ করে বলেন, আমি কি আমার জীবনের গ্যারান্টি দিতে পারি?

সোমবার ( ২৮ অক্টোবর) প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান দেশের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিত্তি প্রস্তর উপলক্ষে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ক্ষমতায় আসার প্রথম বছর শোধ করার জন্য অর্ধেক কর দেওয়া হয়েছিল, তারা সবাই জানত যে দেশটি ধ্বংস হয়ে গেছে। পিআইএ এবং রেলওয়েসহ অনেকগুলি সংস্থায় সংকট ছিল। প্রথম দিন থেকেই তারা চিৎকার করে বলেছিল যে সরকার ব্যর্থ হয়েছে। আইএফ সহ অন্যান্য সংস্থার দ্বারা স্বীকৃত- আমাদের সবচেয়ে কঠিন সময় ছিল সেটি।

আন্দোলনকারীদের লক্ষ্য সরকারকে ব্যর্থ করা নয়, বরং সরকারকে ব্ল্যাকমেইল করা। ইমরান প্রশ্ন করেন, কোন কারণে তারা পদত্যাগের দাবি জানাচ্ছেন? কখনও বলেছিলেন- তারা কাদিয়ানীদের সাথে দেখা করেছেন, কখনও সরকারকে মুদ্রাস্ফীতির জন্য দোষ দিচ্ছেন। অতচ মুদ্রাস্ফীতি আমাদের ক্ষমতার মধ্যে সবচেয়ে কম।

নওয়াজ শরীফের স্বাস্থ্যের বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে ইমরান বলেন, ‘আদালতে নওয়াজ শরীফ বলেছেন, তিনি স্বাস্থ্যের গ্যারান্টি দিতে পারে কিন্তু আমি আমার জীবনের গ্যারান্টি দিতে পারি না। মানুষ কেবল তার জীবন রক্ষার চেষ্টা করতে পারে। মৃত্যুর গ্যারান্টি দিতে পারে না। এদেশে সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে শ্রেণি ব্যবস্থা। নবী আকরাম স. বলেছেন, আমার মেয়েও যদি অপরাধ করে তবে আমি তাকে শাস্তি দেব।

ইমরান খান বলেন, জাতির ধ্বংসের কারণ ছিল ধনী ও দুর্বলদের জন্য পৃথক আইন ছিল। আমাদের একটি ভিআইপি ব্যবস্থা আছে, সকল মানুষের জন্য অভিন্ন আইন হওয়া উচিত। আইনের শাসন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। উন্নত দেশসমূহ, যারা উন্নয়নের কঠোর নিয়ম তৈরি করেছেন এবং অনুসরণ করেছেন তাদের উদাহরণ রয়েছে যা পাকিস্তানের পক্ষে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ।

তিনি আরও বলেন, নওয়াজ শরীফ জানেন না, এটি একটি অর্থ পাচারের পদ্ধতি ছিল, কখনও কখনও প্রধানমন্ত্রী অন্য দেশেও কাজ করেছিলেন। তারা একসাথে দেশ ফিরিয়ে দেন এবং সরকারকে ব্ল্যাকমেল করার এই উপায় বের করেন।

পাক প্রধানমন্ত্রী বলেন, আপনি মার্চ করুন বা ব্ল্যাকমেল করুন; দ্বিতীয় এনআরওয়ের কারণে আপনি পাকিস্তান এনআরও পাবেন না। হতাশাগ্রস্থ এবং দেশীয় অর্থনীতি সঙ্কটে রয়েছে এবং এটিই মুদ্রাস্ফীতি বৃদ্ধির কারণ। বিশ্ব পাকিস্তান এবং পাকিস্তানের ব্যবসায়ীদের বিনিয়োগের কথা ভাবছে। বিনিয়োগগুলিও আকর্ষণ করছে, ব্যবসায়ীরা স্থির করের পছন্দকে প্রকাশ করেছেন।

তিনি বলেন, আমরা পুরো অঞ্চলে শিক্ষাক্ষেত্রে সর্বাগ্রে ছিলাম। পূর্ববর্তী সরকারদের অবজ্ঞার কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিত্তি প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে যা একটি উত্তম পদক্ষেপ, শিখ সম্প্রদায় এখানে বিশ্বজুড়ে পড়াশোনা করতে পারে।

ডেইলি পাকিস্তান উর্দু থেকে ইসমাঈল আযহারে’র অনুবাদ

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য