শিরোনাম

[getTicker results="10" label="random" type="ticker"]

বিয়ে; স্বপ্ন এবং বাস্তবতা


মারুফ তাকী: বিয়ে মানেই কী শুধু আনন্দ আর আনন্দ? জড়িয়ে ধরে ঘুমাবে, স্বপ্ন দেখবে ও দেখাবে, গল্প শোনাবে, মাথায় চুমু দিয়ে বের হবে আবার আসলে চুমু খাবে, আকাশে চাঁদ দেখবে সারারাত জুড়ে, জড়িয়ে বসে থাকবে দুজন দুজনাকে, একজন আরেকজনের জন্য পুরোরার জেগে থাকবে, ব্যথা করলে চুমু দিবে, খানা খাওয়ার বদলে আদর খাওয়াবে, গল্পে গল্পে জীবন কেটে যাবে ; এগুলোর নামই কী বিয়ে বা এগুলোর জন্যই কী বউ কিংবা এটাই কী বিবাহিত জীবন?

একবাক্যে- না। বিয়ে কখনো কল্পনা বা স্বপ্নের মতো না। বৈবাহিক জীবন হলো বাস্তবতা। এখানে কল্পনা আর স্বপ্নরা বাস্তবে রূপ নেয় না। যেসব গল্প শুনে বিবাহের প্রতি উদবুদ্ধ* হোন বা ফ্যান্টাসিতে ভুগেন সেগুলোই বিবাহিত জীবনের আসল বাস্তবতা না। এসব গল্পের মত ঘটে থাকে মাঝেমধ্যে, এগুলোতে আনন্দিত হয়ে লেখক তার গল্পে এটে রাখে; যাতে সবসময় সেই ভালোবাসাটা অনুভব করতে পারে। তাছাড়া অনেক লেখক আছে আল আমিন ভাইয়ের মত বিয়ের আগেই বৈবাহিক জীবন নিয়ে লেখে। তাহলে কী লেখবে সেটা তো বুঝাই যায়!

গল্প পড়ে যদি মনে করেন বিয়ে মানেই রসমলাই, শুধু মিষ্টি আর মিষ্টি, কোন তিতা নেই, নেই তেতুলের মত টকও; তবে ভুলে আছেন। এই গল্পের উপর নির্ভর করে যদি বিচার করেন আপনার বৈবাহিক জীবনকে তবেও আপনি ভুলে আছেন। এই বিবাহিত জীবনে পরিমিত রাগ, খুনসুটি, ভুল বুঝাবুঝি সবই হবে; শুধু আবেগে সীমাবদ্ধ থাকার নাম স্বপ্ন বা কল্পনা, বৈবাহিক জীবনের বাস্তবতা নয়।
অনেক ভাই সামান্য ঝামেলা হলে অস্থির হয়ে পড়েন, স্ত্রীর হাল্কা রাগে ভুলে যান উমার রাদিআল্লাহু তাআ'লা আনহু পর্যন্ত স্ত্রীর রাগের সময় চুপ থেকেছেন। বউয়ের হাল্কা দুষ্টুমিকে অনেকে অপমান মনে করে বসেন, পরে ঝগড়া বাদলে সমস্যা নিয়ে আসেন।
মূল সমস্যা হলো- উনারা মনে করেন বিয়েটা স্বপ্নের মত; বাস্তবতায় এসে দেখেন সব উলটপালট, সবকিছু ভিন্ন।

ভেবেছিলেন- আজীবন সারারাত জাগ্রত থাকবেন দিনের বেলা জড়িয়ে ধরে ঘুমিয়ে থাকবেন। কিন্তু সংসার শুরু হলে ভেঙে যায় এমন স্বপ্ন, রাতে কোনরকম কাজবাজ সেরে ঘুমিয়ে পড়ে, সকাল হলে বউমা ব্যস্ত হয়ে যায় ঘরের কাজে স্বামী চলে যায় চাকরি বা ব্যবসায়। পুরো পৃথিবী ঘুরার স্বপ্ন সীমাবদ্ধ হয়ে যায় সপ্তাহে বা মাসে একদিন শহরের ঘুরার মাঝে। মোটকথা বাস্তবতা আর স্বপ্ন এক না, কখনোই না।
এগুলো বলার উদ্দেশ্য এই না- আপনারা বিয়ে থেকে বিরত থাকুন। বরং আমি তো বলি- যার সামর্থ্য আছে তার উচিৎ না ফিতনার জমানায় বিয়ে ছাড়া থাকা। সবার উচিৎ এই মহান কাজটি সেরে নেয়া। তবে তার স্বপ্ন বা কল্পনা যেন বিয়ের মূল উদ্দেশ্য না থাকে তা বোঝানোই উদ্দেশ্য। আশাকরি - প্রিয়দের বৈবাহিক জীবন সুখের হবে,শান্তি বইবে, আল্লাহর জন্য ভালোবাসা থাকবে। ইনশাআল্লাহ।

লেখক: মুতাআল্লিম

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য