শিরোনাম

[getTicker results="10" label="random" type="ticker"]

চাই আকাশসম মানসিকতা


মাঈনুদ্দীন ওয়াদুদ : এটা জানা কথা যে, গালমন্দ হলো মুর্খ ও কাপুরুষ লোকদের হাতিয়ার। এমন আরো কিছু কাজ আছে যেগুলো করে থাকে মুর্খরা। সরাসরি কোনো উপায়ে ঘায়েল করার সুযোগ না পেয়ে পেছনে চোরের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়। কারো সাথে ঝগড়া হলে যদি সে ঝগড়ায় হেরে যায় পরবর্তীতে এই ঝাল মেটানোর জন্য বিভিন্ন ধরনের ফন্দি খোঁজে। যেমন- কোনো মূল্যবান সম্পদ লুকিয়ে ফেলা। সার্টিফিকেট চুরি করা। পেছনে পেছনে গিবত করা ইত্যাদি। এর সাথে ভার্চুয়াল জগত সংশ্লিষ্ট আরো একটি বিষয় যোগ হয়েছে নতুনভাবে, তাহলো ফেসবুক আইডি বা পেইজ হ্যাক করা অথবা ইউটিউব চ্যানেলে অন্যায়ভাবে রিপোর্ট করা।

ঠিক এই ঘটনাটি ঘটিয়েছে কতিপয় ফেসবুকবোদ্ধা বন্ধুরা। তাও কার সাথে, যিনি মুসলিম উম্মাহর কল্যাণচিন্তায় সদা সর্বদা নিজেকে নিয়োজিত রাখেন। কোনো চাকুরি কিংবা ব্যবসায় জড়িয়ে নিজের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির চিন্তা করেন না। চিন্তা করেন কওমিয়ানদের নিয়ে। উম্মতে মুহাম্মদীকে নিয়ে। অথচ আমরা কিনা একটু ব্যক্তিগত মতের বিপরীত হওয়ায় তার ফেসবুক আইডিটাই হ্যাক করে দিলাম। এই কাজের মাধ্যমে আমরা কি আসলে কোনো ফায়দা ওঠাতে পেরেছি? নিজেদের পন্ডিত হিসেবে জাহির করতে পেরেছি? হ্যাঁ, যেটা পেরেছি সেটা হলো আমরা আমাদেরকে যুগের সংকীর্ণ মানসিকতার অধিকারী, মুর্খ ও কাপুরুষ জাতী হিসেবে পরিচিত করতে পেরেছি। যা আদর্শিক বিবেচনায় কোনোভাবেই কাম্য নয়।

রতনে রতন চেনে। এই প্রবাদ বাক্যের বিশ্লেষণ করার প্রয়োজনীয়তা অনুভব হচ্ছে না তাই সেদিকে যেতে চাচ্ছি না। শুধু বলতে চাই, যুগের মানিকদের চিনতে ভুল করবেন না। একটু গভীরে গিয়ে নিরপেক্ষ দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে ভাববেন- আমার মাঝে কি আছে সেই সম্ভাবনা যা তাঁকে আল্লাহ দিয়েছেন? যদি নাই থাকে তবে কেনো একটি মাত্র পোস্ট দেখে আপনি তাঁকে তুলোধুনা করছেন? কোন যুক্তিতে আপনি তাঁর আইডি হ্যাক করছেন? তাহলে কি ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি থাকা অপরাধ?

মনে রাখবেন, হারিয়ে চিনে লাভ নেই! জীবিত থাকতে আরেকটু গভীরভাবে নিরপেক্ষ দৃষ্টিতে চেনার চেষ্টা করুন। তবেই উপকৃত হবেন আপনি, উপকৃত হবে দেশ, উপকৃত হবে উম্মাহ। আল্লামা মুফতী ফজলুল হক আমিনী চলে যাবার আগে আমরা তাঁর মূল্য বুঝতে পারিনি। জীবিত অবস্থায় আমি আমার কাছের কতক উস্তাদের কাছে তাঁর বদনাম শুনেছি। সামনে পেয়ে গুনগুন করে আবোল-তাবোল বকতে দেখেছি। কিন্তু আজ তাঁর অনুপস্থিতিতে কিছুটা হলেও আমরা উপলদ্ধি করেছি; কী জিনিস আমরা হারিয়েছি। হারিয়ে চিনে কতোটুকু লাভ হয়েছে আমাদের? তবে কি আমরা তাঁর চলে যাবার অপেক্ষায় ছিলাম? আমাদের শুভবুদ্ধির উদয় হোক!

খাদেম- মারওয়াহ, স্বাপ্নিক-তামাদ্দুন



একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য