শিরোনাম

[getTicker results="10" label="random" type="ticker"]

ঈমান বাঁচাতে ভন্ডপীরদের বিষয়ে সজাগ থাকতে হবে, চরমোনাই পীর


তামাদ্দুন ডেস্ক : ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমীর মুফতি সৈয়দ মোঃ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাই বলেছেন, সবাইকে শিরক ও বিদআত থেকে মুক্ত থাকতে হবে। পীর সাহেব ঈমান বাঁচাতে সমাজের ভন্ডপীর এবং বাতিল পন্থীদের সম্পর্কে সতর্ক থাকারও আহ্বান জানান। বিশুদ্ধ ঈমান-আমলের মাধ্যমে আখেরাতে জাহান্নাম থেকে নাজাতের ব্যবস্থা নিজেকেই করতে হবে। কোন পীর কারো জান্নাতের জামিন হতে পারেন না। পীর হলেন শুধু পথপ্রদর্শক। শরীয়ত বিরোধী কথা যদি পীরের বা দলের নেতারও হয় তা মানা যাবে না। তিনি শরীয়তের ওপর মজবুত থেকে জান্নাতের উপযুক্ত হিসেবে নিজেকে গড়ে তোলার জন্য সবার প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, দুনিয়াতে যতদিন ওহীভিত্তিক শিক্ষা ব্যবস্থা থাকবে ততদিন দুনিয়া টিকে থাকবে। কুরআনী শিক্ষার অভাবে মানুষ চরিত্রহীন হচ্ছে। কুরআনী শিক্ষায় শিক্ষিত জাতি কখনো অনৈতিক কাজে জড়াতে পারে না। কুরআন-সুন্নাহ’র শিক্ষা ছাড়া একজন মানুষ প্রকৃত মানুষে পরিণত হতে পারে না। সমাজে অশান্তির মূলেই রয়েছে নৈতিকতা বিবর্জিত শিক্ষা ব্যবস্থা। ইলমে ওহীর শিক্ষা প্রসারে সকলকে একযোগে কাজ করতে হবে।

বাংলাদেশ মুজাহিদ কমিটি সিলেট বিভাগের উদ্যোগে সিলেট আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে ৩ দিন ওয়াজ মাহফিলের সমাপনী দিন শনিবার (১৬ নভেম্বর) রাত ১১টায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

পীর সাহেব চরমোনাই আরো বলেন, দেশে দুর্নীতি জটিল এবং ব্যাপক আকার ধারণ করে দেশের সীমানা পেরিয়ে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে আঘাত হেনেছে। দুর্বৃত্তায়িত, আকণ্ঠ দুর্নীতিগ্রস্থ, সহিংস উগ্রবাদে বিস্তৃত ইত্যাদি। ঘুম থেকে উঠেই পত্রিকার আদ্যোপান্তজুড়ে বীভৎস নৃশংস হত্যাকান্ড, খুন, গুম, ধর্ষন, ছিনতাই, ডাকাতি, চুরির সব খবর। ইতিহাসে আমরা দেখেছি সভ্যতার উত্থান ঘঠেছে, শিখরে আরোহণ করেছে একমাত্র তখনই, যখন জাতীয় নেতৃত্বে ন্যায়পরায়ণ ও দুর্নীতিমুক্ত নেতার আবির্ভাব ঘটেছে। নেতৃত্ব ভোগবাদী, ভোগবিলাসী ও দুর্নীতিপরায়ণ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই অবধারিতভাবে সভ্যতার পতন শুরু হয়েছে। বাংলাদেশের দুর্নীতির চিত্র আজ জাতিকে এক বিপজ্জনক ঝুঁকিতে ঠেলে দিয়েছে। এসব থেকে রক্ষা পেতে সবাইকে ইসলামের সুমহান আদর্শে ফিরে আসতে হবে।


বাংলাদেশ মুজাহিদ কমিটি সিলেট বিভাগীয় কাম অডিটর মাওলানা রেজওয়ানুল হক চৌধুরী রাজুর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বয়ান পেশ করেন, পীর সাহেব চরমোনাই (রহ.) এর খলিফা হাফিজ মাওলানা আব্দুল আউয়াল, নওমুসলিম ডা. সিরাজুল ইসলাম সিরাজী ঝালকাটি, মাওলানা রেজাউল করিম টাঙ্গাইল, জাউয়া বাজার শায়খুল হাদীস মাওলানা মোস্তফা কামাল, গহরপুর মাদ্রাসার শায়খুল হাদীস মাওলানা আব্দুর রহমান প্রমূখ

সূত্র : ইনকিলাব

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য