শিরোনাম

[getTicker results="10" label="random" type="ticker"]

মুফতি ইদরীস কাসেমীর ইন্তেকালে পয়ামে ইনসানিয়াতের শোক প্রকাশ


নিজস্ব প্রতিনিধি: তামাদ্দুন২৪ডটকম: সহীহ বুখারী শরীফের প্রসিদ্ধ ব্যাখ্যাগ্রন্থ কাশফুল বারীসহ অসংখ্য গ্রন্থের লেখক, দারুল উলুম দেওবন্দের সাবেক মুঈনে মুফতী, শায়খুল হাদীস মুফতী ইদরীস কাসেমী ৯ ডিসেম্বর দিবাগত রাত ৩ টায় ইন্তেকাল করেছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।

তাঁর ইন্তেকালে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন শায়খ আবুল হাসান আলী নদভী ইসলামিক রিসার্চ ইনস্টিটিউট ও সেন্টার ফর মাকাসিদুশ শরীআহ স্টাডিজ এর পরিচালক এবং পয়ামে ইনসানিয়াত বাংলাদেশের আমীর, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ মাওলানা শহীদুল ইসলাম ফারুকী।

মাওলানা ফারুকী বলেন, মুফতী ইদরীস কাসেমী সদা হাস্যোজ্জ্বল প্রাণবন্ত একজন কর্মবীর আলেম এবং ইদরীসিয়া ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন। এই ট্রাস্টটি তিনি ইলমে হাদীসের খেদমতের জন্য প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। উপমহাদেশে ইলমে হাদীসের খেদমত ও বিকাশে তিনি ব্যাপক অবদান রেখেছেন।

একটা সময় তিনি বিশ্ববিখ্যাত ইসলামী বিদ্যাপীঠ দারুল উলূম দেওবন্দের সহকারী মুফতি পদে নিযুক্ত ছিলেন। দারুল উলূম দেওবন্দের মুফতিয়ে আযম মুফতী হাবীবুর রহমান খায়রাবাদীর সাথে তার ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিলো। প্রতি বছরই তিনি বাংলাদেশে তাঁকে দাওয়াত করতেন।

তার অমর কীর্তি হলো সহীহ বুখারী'র প্রসিদ্ধ ব্যাখ্যাগ্রন্থ ‘কাশফুল বারী’। এটি তিনি প্রথমে বহু খন্ডে উর্দূ ভাষায় রচনা করেন। এরপর ইদরীসিয়া ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের মাধ্যমে তা বাংলায় অনুবাদ করিয়ে বাংলা ভাষাভাষী ইলম পিপাসুদের পিপাসা নিবারণ করেন। উর্দূ ও বাংলা উভয় ভাষাতেই ‘কাশফুল বারী’ ব্যাখ্যাগ্রন্থটি উপমহাদেশে ব্যাপক জনপ্রিয়তা ও গ্রহনযোগ্যতা লাভ করে। ছাত্র শিক্ষকদের হাতে হাতে তা পঠিত হয়।

মাওলানা ফারুকী আরো বলেন, নিরন্তর ইলমে হাদীসের খেদমকতকারী মুফতি ইদরীস কাসেমীর ইন্তেকালে উপমহাদেশে ইলমে হাদীসের ক্ষেত্রে যে শূন্যতা সৃষ্টি হলো তা সহজে পূরণ হবার নয়। আমরা তার রূহের মাগফিরাত কামনা করছি এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য