শিরোনাম

[getTicker results="10" label="random" type="ticker"]

মুজাহিদগণ বিশ্বের অঘোষিত পরাশক্তি প্রমাণিত

তামাদ্দুন ডেস্ক: ১৯ বছরের ব্যর্থ অভিযান শেষে আজ পরাজয়পত্রে স্বাক্ষর করে আফগান থেকে পালালো আমেরিকা। আজ কাতারের দোহার শেরাটন হোটেলে তালেবানদের সাথে অনুষ্ঠিত হলো আমেরিকার ঐতিহাসিক শান্তিচুক্তি।

তালেবান মুজাহিদগণ বিশ্বের অঘোষিত পরাশক্তি তা আবারও প্রমাণিত। ইতিহাসের পাতায় এই দিনটি স্বর্ণাক্ষরে লিখা থাকবে।অপেক্ষার প্রহর শেষে কাতারের শেরাটন হোটেল থেকে আরেকবার ঘোষিত হলো গোটাবিশ্বের মুমিনগণ বিজয়ের চূড়ান্ত ঘোষনা। আজ আফগানি হুযুর, মাওলানা, মোল্লাদের হাতে নাকে খত দিয়ে, বর্তমান
কথিত সুপারপাওয়ার আমেরিকা বিদায় নিতে যাচ্ছে।

দীর্ঘ আঠারো বছর ধরে সম্মিলিতজোট হুযুর, মাওলানা, ইমানদারদের নাস্তানাবুদ করতে প্রাণান্ত চেষ্টা করছিল ! কিন্তু রব্বে কারিমের ইচ্ছে ছিল, কিছু ঈমানওয়ালাদের শাহাদাতের মর্যাদা দেবার পর চূড়ান্ত বিজয় !স্মরণীয় বিজয়ের খুশি ও পরাজয়ের লাঞ্ছনা- গঞ্জনা স্বচক্ষে উপলব্ধি করতে উপস্থিত ছিলো ৩০ টি দেশের প্রতিনিধিসহ ১২ টি গুরুত্বপূর্ণ সংগঠন।চুড়ান্ত বিজয় ও সফলতা মুমিনদেরই। মহান রবের ঘোষণা অবশেষ সত্য প্রমাণিত হলো।

আফগানিস্তানে তালেবানদের সাথে যুক্তরাষ্ট্রের দীর্ঘদিনের যুদ্ধের অবসান ঘটাতে দুপক্ষের মধ্যে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। কাতারের রাজধানী দোহায় শনিবার এ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। চুক্তিস্বাক্ষর অনুষ্ঠানে পাকিস্তান, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, উজবেকিস্তান ও তাজিকিস্তানের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

চুক্তি স্বাক্ষরের আগে এ দু’পক্ষের মধ্যে একটি যুদ্ধবিরতি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল। চুক্তি স্বাক্ষরের আগে শনিবার সকালে তালেবান তাদের সকল যোদ্ধাদের যে কোনো ধরনের আক্রমণ থেকে বিরত থাকার নির্দেশ জারি করে।
মোহাম্মদ নাঈম নামে তালেবানদের একজন প্রতিনিধি দোহায় এ চুক্তিকে ‘সামনে এগিয়ে যাওয়ার’ একটি পদক্ষেপ হিসেবে বর্ণনা করেন। তিনি আলজাজিরাকে বলেন, ‘এ চুক্তির মাধ্যমে আফগান যুদ্ধের অবসান হতে যাচ্ছে।’

চুক্তি স্বাক্ষরের কয়েক মিনিট আগে এক যুক্ত বিবৃতিতে যুক্তরাষ্ট্র ও আফগান সরকার বলেছে, যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো সৈন্যদের আফগানিস্তান থেকে ১৪ মাসের মধ্যে প্রত্যাহার করে নেয়া হবে। প্রায় ১৪ হাজার মার্কিন সৈন্য এবং ন্যাটো বাহিনীর ৩৯ মিত্র ও অংশীদার দেশের আনুমানিক ১৭ হাজার সৈন্য আফগানিস্তানে রয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, চুক্তি স্বাক্ষরের ১৩৫ দিনের মধ্যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আফগানিস্তানে তাদের সৈন্য সংখ্যা ৮ হাজার ৬০০-তে নামিয়ে আনবে এবং অন্যান্য প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়ন করবে।বিবৃতিতে এও বলা হয় যে, আগামী মে মাসের ২৯ তারিখে আফগান সরকার জাতিসঙ্ঘ নিরাপত্তা কাউন্সিলে তালেবান সদস্যদের উপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে পদক্ষেপ নেবে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের উদ্যোগে ২০১৮ সালে এ আলোচনার শুরু হয়। এ আলোচনায় আফগানিস্তানের বর্তমান সরকার অংশ নিতে চাইলেও পশ্চিমা সমর্থনে গঠিত এ সরকারকে ‘পুতুল সরকার’ হিসেবে আখ্যা দিয়ে তালেবানরা তাদের সাথে বসতে অস্বীকৃতি জানায়।

২০২০ সালের নির্বাচনে আবারো প্রার্থী হতে যাওয়া প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তাদের এ দীর্ঘতম যুদ্ধের অবসান ঘটানোর জন্যই এ চুক্তির ব্যাপারে অগ্রগামী হয়েছেন। তাদের সৈন্যদের দেশে ফিরিয়ে নিতে চান তিনি।
দীর্ঘমেয়াদি এ যুদ্ধে ২০০৯ সালের পর থেকে আফগানিস্তানের এক লাখের বেশি মানুষ মারা গেছেন। এ সময় থেকে জাতিসঙ্ঘে সহযোগিতা মিশন এ মৃত্যুর হিসাব রাখতে শুরু করে।

সূত্র : আলজাজিরা

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ