শিরোনাম

[getTicker results="10" label="random" type="ticker"]

মোদি এলে মুজিববর্ষের অনুষ্ঠান কলঙ্কিত হবে : নুর

আমিন মুনশি : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সহ-সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুর বলেছেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর অনুষ্ঠান কলঙ্কিত করা হবে। আমরা মোদিকে এনে মুজিববর্ষের অনুষ্ঠান কলঙ্কিত হতে দেব না।

বুধবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে ঢাবির সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ আয়োজিত ভারতে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের (সিএএ) বিরুদ্ধে আন্দোলনরতদের ওপর অব্যাহত হামলা, সহিংসতা এবং মোদি সরকারের সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ মিছিলের আগে সমাবেশে ডাকসু ভিপি এ কথা বলেন।

নুর বলেন, বঙ্গবন্ধু কোনো রাজনৈতিক দলের নেতা নন, তিনি হলেন বাংলার সব ধর্ম-শ্রেণি-পেশার মানুষের নেতা। তার জন্মশতবার্ষিকীতে দাঙ্গাবাজ, সন্ত্রাস বাহিনীর প্রধান, উগ্র সাম্প্রদায়িক মোদি এ দেশে আসতে পারবেন না। যদি আসেন তাহলে ছাত্রসমাজের রক্তে এ দেশে রক্তগঙ্গা বয়ে যাবে।

তিনি বলেন, মুজিববর্ষের অনুষ্ঠানে ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জিকে দাওয়াত করা হয়েছে। আমরা স্যালুট জানাই প্রণব মুখার্জির মতো অসাম্প্রদায়িক ব্যক্তিকে দাওয়াত করার জন্য। কিন্তু মোদির মতো একজন সাম্প্রদায়িক ব্যক্তি এ দেশে আসতে পারেন না। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে মোদিকে এনে আমরা অনুষ্ঠানে কলঙ্কিত হতে দেব না।

ডাকসু ভিপি বলেন, আরএসএসের (রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ) প্রভাব শুধু ভারতে নয়, বাংলাদেশেও এর সদস্য রয়েছে। আমরা দেখেছি, ভারতের বিরুদ্ধে কথা বলার কারণে এখানে আমরা হামলার স্বীকার হয়েছি, ডাকসুতে হামলার স্বীকার হয়েছি, কিন্তু এখন পর্যন্ত তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়নি।

তিনি বলেন, সব পত্রিকায় সংবাদ এসেছে দিল্লিতে সাংবাদিকের প্যান্ট খুলে দেখা হয়েছে তিনি হিন্দু না মুসলমান। এর চেয়ে নিকৃষ্ট ঘটনা আর কী হতে পারে? ভারতের সাম্প্রদায়িক মোদি সরকার দেশে একটি সন্ত্রাসী রাজত্ব কায়েম করছে। আইএস যেমন একটি সন্ত্রাসী সংগঠন তেমনি সেখানে আরএসএস আরেকটি উগ্রবাদী সন্ত্রাসী বাহিনী। সেই আরএসএসের মদদপুষ্ট এই দল অনেক দিন ধরেই চেষ্টা করে যাচ্ছে ভারতকে একটি কট্টর হিন্দুত্ববাদী রাষ্ট্রে পরিণত করার জন্য।

বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশে ছাত্র অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন, যুগ্ম আহ্বায়ক মো. রাশেদ খান ও ফারুক হাসান, ঢাবি শাখার সভাপতি বিন ইয়ামিন মোল্লা ও সাধারণ সম্পাদক আখতার হোসেনসহ শতাধিক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য