শিরোনাম

[getTicker results="10" label="random" type="ticker"]

এক আজান সমাপ্ত করলেন দুই মুয়াজ্জিন!

মুনশি আমিনুল ইসলাম

ইতিহাসে এবারই প্রথম মসজিদে হারামে এক ওয়াক্ত নামাজের আজান দুই মুয়াজ্জিন মিলে সম্পন্ন করলেন। তবে তা স্বাভাবিক কোনো কারণে নয়, বরং মসজিদ আল-হারামের প্রবীণ ও প্রধান মুয়াজ্জিন শায়খ আলী আহমদ মোল্লা আজান শুরু করে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন।

তখন অপর মুয়াজ্জিন হাশেম শাক্বাফ আজানের বাকি অংশ সম্পন্ন করেন।

গত বৃহস্পতিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) ইশার নামাজের আজান দেয়ার সময় ঠান্ডাজনিত কারণে অসুস্থ হয়ে যান মসজিদে হারামের মুয়াজ্জিনদের নেতা শায়খ আলী আহমদ মোল্লা। আজান শুরু করতেই ঠান্ডায় তার কণ্ঠ রুদ্ধ হয়ে আসছিল। তিনি ‘আল্লাহ আকবার, আল্লাহু আকবার’ বলে আজান শুরু করার পর আর সামনে এগুতে পারেননি। পরে মসজিদ আল-হারামের অন্য মুয়াজ্জিন হাশেম শাক্বাফ তার পরিবর্তে আজানের বাকি অংশ সম্পন্ন করেন।

মসজিদে হারামের এ প্রবীণ মুয়াজ্জিন এখন সুস্থ রয়েছেন। তার সুস্থতার ব্যাপারে তিনি তার শুভাকাঙ্ক্ষীদের অবগত করার কথাও জানিয়েছেন।

কে এই আলী আহমেদ আল-মোল্লা?

সৌদি আরবের মক্কার মসজিদ আল হারামে চার দশকেরও বেশি সময় ধরে মুয়াজ্জিনের দায়িত্ব পালন করে আসছেন আলী আহমেদ আল-মোল্লা। ইসলাম ধর্ম অনুযায়ী সবচেয়ে পবিত্র স্থানের এই দায়িত্ব তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে প্রথম লাভ করেন ১৯৭৫ সালে। মুয়াজ্জিন আল-মোল্লার ডাক নাম ‘বিলাল’। ইসলামের প্রথম মুয়াজ্জিন হজরত বিলাল (রা) এর নামানুসারেই তার এই নামকরণ।

হজরত বিলালের (রা) কন্ঠ অত্যন্ত সুরেলা এবং মিষ্টি হওয়ায় নবীজি হযরত মুহাম্মদ (সা) বলেছিলেন, ‘বিলালই হবে ইসলামের প্রথম মুয়াজ্জিন।’ বংশপরস্পরায় এই দায়িত্ব পালন করে আসছেন মুয়াজ্জিন আল-মোল্লার পরিবার। এর আগে, তার দাদা শেখ আলী এবং বাবা সিদ্দিক এবং তার দুইজন চাচা এবং দুই চাচাতো ভাই এই দায়িত্ব পালন করেছেন।

মুয়াজ্জিন আলী আহমেদ আল-মোল্লা জন্মগ্রহণ করেন ১৯৪৫ সালে। তার চাচাতো ভাই শেখ আব্দুল মালাক আল-মুল্লার মৃত্যুর পর ১৯৭৫ সালে তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে মসজিদ আল হারামের মুয়াজ্জিনের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, তার জীবনের শ্রেষ্ঠ সংবাদটি হলো- যখন তার বাবা তাকে জানান, তিনি মক্বার মসজিদ আল হারামের মুয়াজ্জিন হতে চলেছেন।

তিনি আরও বলেন, তার অনেক বন্ধুও তাকে এই দায়িত্ব গ্রহণে উৎসাহিত করেন। সৌদি কিং খালেদ বিন আব্দুল আজিজের উপস্থিতিতে তিনি একবার মাগরিবের আজান দিয়েছিলেন।

শায়েখ আলী আহমেদ মোল্লা বিশ্বজুড়ে পবিত্র মক্কার বিশিষ্ট মুয়াজ্জিন, মধুর কণ্ঠস্বরের অধিকারী হিসেবেও ব্যাপক পরিচিত। কেউ কেউ তাকে বিলাল আল হারাম নামেও ডেকে থাকেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য