শিরোনাম

[getTicker results="10" label="random" type="ticker"]

হাফেজদের প্রতি মুফতী শামসুল ইসলাম জিলানীর উদাত্ত্ব আহবান


তামাদ্দুন২৪ডটকম:তারাবীহতে হাফেজ সাহেবগন নিন্মুক্ত বিষয়গুলোর প্রতি ভালোভাবে খেয়াল রাখার বিনীত অনুরোধ। তবেই আশা করা যায় যে, তারাবীহতে খতমে কুরআনের সাওয়াব পাওয়া যাবে।

১/ তেলাওয়াতের সময় প্রতিটি হরফ স্পষ্ট বুঝা যাচ্ছে কিনা?
এ বিষয়টি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।তেলাওয়াতের আদব এটাই যে প্রতিটি হরফ যেন আলাদা আলাদা উচ্চারণ বুঝা যায়।
ورتل القران ترتيلا এ বিষয়টির প্রতিই গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে।

২/ ওয়াজিব গুন্নাহ এক আলিফ না হলেও আধা আলিফ এর কম যেন না হয় খুব খেয়াল করা জরুরী। কারণ এগুলো ওয়াজিব গুন্নাহ।
আমাদের অনেকেই তারাবীহতে ওয়াজিব গুন্নাহ একেবারেই ছেড়ে দেই ।শুধু তাশদীদের উচ্চারণ করি। অথচ এগুলো ওয়াজিব।

৩/ এক আলিফ মাদ পরিপূর্ণ আদায় হচ্ছে কিনা সেদিকে খেয়াল রাখা ।অনেকেই তাড়াতাড়ি পড়ার দরুন এক আলিফ মাদ আদায় হয় না। শুধু যবরের উচ্চারণ হয়। অথচ এর দ্বারা অর্থে অনেক বড় বিকৃতি আসতে পারে ।অনেক ক্ষেত্রে নামাজও ভেঙ্গে যেতে পারে।

৪/ আবার অনেকেই তেলাওয়াতে সুর দিতেএক আলিফ এর জায়গায তিন আলিফ টানছিল।

৫/ তেমনি ভাবে তিন আলিফ চার আলিফ মাদ যেন কিছুটা কম হলেও একেবারে এক আলিফ না হয়ে যায় ।
অনেকেই এই ভুলগুলো খুব বেশি করি।এক আলিফ এর জায়গায় যেন তিন আলিফ না হয় আর তিন আলিফ এর জায়গায় যেন একেবারে এক আলিফ না হয়।

এই বিষয়গুলোর প্রতি খেয়াল করার জন্য প্রয়োজনে নামাজের তেলাওয়াত নিজের মোবাইলে রেকর্ডিং করে পরবর্তীতে শুনে দেখবে উপরোক্ত বিষয়গুলোর কোনটা কোনটা ছুটে যাচ্ছে আর তেলাওয়াতের আদব বিনষ্ট হচ্ছে।

এবং সে বিষয়গুলো মাশক করে পরেরদিন সংশোধন করার আপ্রাণ চেষ্টা করতে থাকা। এভাবে দুই একদিন চেষ্টা করলে ইনশাআল্লাহ শরীয়তের মেজাজ অনুযায়ী খতমে কোরআন অনুষ্ঠিত হবে আর আমরা এর দ্বারা কোরআনের বরকত হাসিল করতে পারব ।

বিশেষ করে এ বছর যেহেতু হাতে সময় অনেক তাই দিনের বেলা য়সুন্নত তরিকায় কোরআন খতম করার লক্ষ্যে এ বিষয়গুলোর প্রতি খুব খেয়াল রাখবো এবং ইমাম সাহেব হাফেজ সাহেব কে এই বিষয়গুলোর প্রতি উৎসাহিত করবেন।

কারণ ফুক্বাহায়ে কিরাম লিখেছেন কোরআনে কারীমের তেলাওয়াত এর ক্ষেত্রে উপরোক্ত বিষয়গুলোর প্রতি যদি খেয়াল না করা হয় এবং এত দ্রুত পড়া হয় যে হরফ গুলো ও শব্দগুলো আলাদা আলাদা স্পষ্ট বুঝা না যায় তাহলে তারাবীহ ছোট ছোট সূরা সূরা দিয়ে আদায় করা উত্তম।

আল্লাহ তাআলা আমাদেরকে এ রমজান মাসে কোরআনে কারীমের বরকত হাসিল করার এবং তারাবীতে খতমে কুরআনের সাওয়াব অর্জন করার তৌফিক নসিব করেন।

মুফতী শামসুল ইসলাম জিলানী
প্রতিষ্ঠাতা ও মুহতামিম:
মাদরাসায়ে আশরাফিয়া দারুল উলুম, ‍কুমিল্লা।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য