শিরোনাম

[getTicker results="10" label="random" type="ticker"]

কোরআন-হাদীসের দৃষ্টিতে খতমে তারাবীহ’র বিধান


মুফতী রেজাউল করীম আবরার: উমর রা. সাহাবাদেরকে বিশ রাকাত তারাবীহ পড়া নির্দেশ প্রদান করেছিলেন, এটাই হল চূড়ান্ত কথা। এ প্রসঙ্গে মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বায় ইয়াহইয়া বিন সাঈদ এর একটি বর্ণনা রয়েছে। তিনি বলেন-

أَنَّ عُمَرَ بْنَ الْخَطَّابِ أَمَرَ رَجُلاً يُصَلِّي بِهِمْ عِشْرِينَ رَكْعَةً.

অর্থাৎ উমর রা. একজন লোককে বিশ রাকাত নামাজ পড়ানোর নির্দেশ প্রদান করেন।(মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা, হাদিস নং ৭৭৬৪)

এবার দেখুন শায়খ আকরামুযযামান বিন আব্দুস সালামের অবস্থা। আমাদেরকে তিনি সহিহ হাদিসের উপর আমল করার ওয়াজ করেন। কিন্তু তার মিথ্যাচারের অবস্থা দেখুন।

মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বায় বিশ রাকাত সংক্রান্ত ইয়াহইয়া বিন সায়ীদ রহঃ এর হাদীস সম্পর্কে আলোচনা করতে যেয়ে শায়খ লিখেন:

“তাছাড়া ইয়াহইয়া বিন সায়ীদকে কেউ কেউ মিথ্যাবাদী বলেছেন। যেমন, ইমাম আবু হাতিম বলেন, ইয়াহইয়া বিন সায়ীদ কর্তৃক বর্ণিত কোন কথাই সত্য নয়। বরং প্রত্যাখ্যাত। কারণ, সে হল মিথ্যাবাদী। জরাহ ওয়া তা’দীল, ৯ম খন্ড। তাহযীবুত তাহযীব, ৬ষ্ট খন্ড” ( সহীহ বুখারী, ২/৩৪৩. তাওহীদ পালিকেশন্স)

এখানে তিনি বললেন যে, ইয়াহইয়া বিন সায়ীদকে ইমাম আবু হাতিম মিথ্যাবাদী বলেছেন। দলীল স্বরুপ ইবনে আবি হাতিমের “আল জারহু ওয়াত তাদীল” এবং ইবনে হাজার আসকালানী রহঃ এর “তাহযীবুত তাহযীবের” হাওয়ালা দিয়েছেন।

আসুন আমরা দুটি কিতাবের পূর্ণ ইবারত দেখে নেই। আবু হাতিম রহঃ বলেন:
سألت أبي عن يحيى بن سعيد الانصاريفقال: ثقة.
অর্থাৎ, আমি আমার পিতা আবু হাতিমকে ইয়াহইয়া বিন সায়ীদ আল আনসারী সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলাম? তিনি বললেন: ইয়াহইয়া বিন সায়ীদ হলেন ছিকাহ। (আল জারহু ওয়াত তাদীল, ৯/১৪৯)

এবার দেখুন “তাহযীবে” হাফেজ ইবনে হাজার কি বলেন?
وقال أحمد بن حنبل ويحيى بن معين وأبو حاتم وأبو زرعة ثقة
অর্থাৎ, ইমাম আহমদ, ইয়াহইয়া বিন মায়ীন, আবু হাতিম এবং আবু যুরআ তাকে ছিকাহ বলেছেন।( তাহযীবুত তাহযীব, ৯/২৪০.দারুল ফিকর, তরজমা নং, ৭৮৩৭)

এবার আপনি বলুন, শায়খ আকরামুযযামান বিন আবদুস সালাম যে দুই কিতাবের হাওয়ালায় লিখলেন যে, আবু হাতিম ইয়াইইয়া বিন সায়ীদকে মিথ্যুক বলেছেন, সে দুই কিতাবে আমরা দেখতে পেলাম হুবহু এর উল্টো? ইমাম আবু হাতিম তাকে এক বাক্যে ছিকাহ বলেছেন!

এছাড়া ইয়াহইয়া বিন সায়ীদ হলেন বুখারী শরীফের প্রথম হাদীসের বর্ণনাকারী। তাহলে কি ইমাম বুখারী রহঃ মিথ্যুক বর্ণনাকারী থেককে হাদীস রেওয়ায়াত করেছেন?

এই হল তথাকথিত শায়খদের অবস্থা? এদের অন্তরে কি আল্লাহর ভয় নেই? কিভাবে দিন দুপুরে এভাবে জগণ্য মিথ্যাচার করে? তাও বুখারীর টিকায়!

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য