শিরোনাম

[getTicker results="10" label="random" type="ticker"]

হবিগঞ্জে ত্রাণ বিতরণ নিয়ে দু'পক্ষে সংঘর্ষ, ৪ পুলিশসহ আহত ২০


এম কাউসার মাহদী। হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি: তামাদ্দুন। সরকারি ত্রাণ বিতরণকে কেন্দ্র করে হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলায় আওয়ামী লীগ নেতা ও ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের লোকদের পাল্টাপাল্টি সংঘর্ষে ৪ পুলিশ সদস্যসহ অন্তত ২০ জন আহত হয়েছে।

গতকাল শুক্রবার দিবাগত রাতে উপজেলার মোড়াকরি এলাকায় এ সংঘর্ষের ঘটনায় ঘটে। আহত পুলিশ সদস্যরা হলেন, লাখাই থানার সহকারি উপ পরিদর্শক (এএসআই) জ্যোতিষ তালুকদার, কনস্টেবল শরীফ, তালহাব ও জাহির।

এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। গ্রেফতার এড়াতে উভয়পক্ষের লোকজন আত্মগোপন করলেও এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। পুনরায় সংঘর্ষ এড়াতে সতর্ক অবস্থানে রয়েছে পুলিশ।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, মোড়াকরি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কাসেম মোল্লা ফয়সল এবং লাখাই উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আলেয়া আক্তারের স্বামী আওয়ামী লীগ নেতা মোজাহিদ মিয়ার মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল। ইতোপূর্বে স্থানীয় একটি কবরস্থানের মাটি কাটা নিয়েও তাদের মাঝে বাকবিতন্ডা হয়। এসব ঘটনার ধারাবাহিকতায় গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় করোনা পরিস্থিতিতে কর্মহীনদের মাঝে ত্রাণ বিতরণকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের ঝগড়া হয়।

পরে মোজাহিদ মিয়া পক্ষের নাজমুল মিয়াকে মারধোর করেন ইউপি চেয়ারম্যান মোল্লা ফয়সল পক্ষের হামিদ মিয়া। এর জের ধরে উভয়পক্ষ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। পরে পুলিশ গিয়ে ২৭ রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপের মাধ্যমে পরিস্থিতি শান্ত করে। এতে উল্লেখিত ৪ পুলিশ সদস্যসহ উভয়পক্ষে অন্তত ২০ জন আহত হন।

পুলিশ সুত্রে জানা যায়, আহত পুলিশ সদস্যরা চিকিৎসা নিয়েছেন। আমাদের পক্ষ থেকে মামলার প্রস্তুতি চলছে। তবে উভয়পক্ষের লোকজন আত্মগোপনে রয়েছে। পুনরায় সংঘর্ষ এড়াতে পুলিশ সতর্ক অবস্থায় রয়েছে বলেও জানান তিনি।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে লাখাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইদুল ইসলাম বলেন, পুলিশ রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরবর্তীতে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ত্রাণ বিতরণকে কেন্দ্র করে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে বলে নিশ্চিত করেছেন মোড়াকরি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কাসেম মোল্লা ফয়সল।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য