শিরোনাম

[getTicker results="10" label="random" type="ticker"]

যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ‘আলোর সঙ্গে অন্ধকারের লড়াই’ : জো বাইডেন

অনলাইন: যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকান শিবিরের লড়াইকে ‘আলোর সঙ্গে অন্ধকারের লড়াই’ হিসেবে চিত্রিত করেছেন ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রার্থী জো বাইডেন। 

সাবেক এ মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট বৃহস্পতিবার রাতে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির জাতীয় সম্মেলনে দেওয়া বক্তৃতায় রিপাবলিকান ডনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রকে ‘দীর্ঘ সময় ধরে অন্ধকারে ঢেকে রেখেছেন’ বলেও মন্তব্য করেছেন।

“আমি কথা দিচ্ছি। আপনারা যদি প্রেসিডেন্ট পদে আমার উপর আস্থা রাখেন, আমি আপনাদের জন্য সেরাটা নিয়ে আসবো, সবচেয়ে খারাপটা নয়। আমি আলোর মিত্র হবো, অন্ধকারের নয়। এটা আমাদের সময়, জনগণের। একত্রিত হওয়ার এবং কোনো ভুল না করার। ঐক্যবদ্ধভাবে আমরা যুক্তরাষ্ট্রকে অন্ধকারাচ্ছন্ন সময় থেকে বের করে আনতে পারি, পারবো,” বলেছেন বাইডেন।

ডেলাওয়্যারে অঙ্গরাজ্যের উইলমিংটনের চেজ সেন্টার থেকে দেওয়া বক্তৃতায় ৭৭ বছর বয়সী এ রাজনীতিবিদ এসব বলেছেন বলে বিবিসির এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

সম্মেলনের শেষদিন দলীয় মনোনয়ন গ্রহণ করে বাইডেন মার্কিন ভোটারদেরকে ‘ভয়ের বদলে আশা, কল্পকাহিনীর বদলে সত্য এবং বিশেষ সুবিধার বদলে ন্যায্যতা’কে বেছে নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। 

“আমরা আক্রমণাত্মক, কম আশা বেশি বিভক্তি এবং ছায়া ও সন্দেহের পথ বেছে নিতে পারি। অথবা পারি ভিন্ন একটি পথ বেছে নিতে; নিতে পারি ঐক্যবদ্ধ হওয়ার, সংস্কার করার ও (ক্ষত) সারিয়ে তোলার সুযোগ। বেছে নিতে পারি আশা ও আলোর পথ।

“এটি জীবন বদলে দেওয়া নির্বাচন হতে যাচ্ছে। দীর্ঘ সময় ধরে যুক্তরাষ্ট্রকে কেমন দেখাবে, এই নির্বাচনই তা ঠিক করবে,” বলেছেন সাম্প্রতিক জনমত জরিপগুলোতে ৭৪ বছর বয়সী ট্রাম্পের চেয়ে সামান্য এগিয়ে থাকা বাইডেন।

বিবিসি বলছে, জনমত জরিপ ডেমোক্র্যাটদেরকে আপাত স্বস্তি দিলেও নির্বাচনের এখনও প্রায় আড়াই মাস বাকি। যে কারণে রিপাবলিকান ট্রাম্পের সামনেও হিসাব ওলট-পালট করে দেওয়ার পর্যাপ্ত সময় আছে।

“এই প্রেসিডেন্ট সম্বন্ধে আমরা যা জানি, তাতে তাকে যদি আরও চার বছরও সময় দেওয়া হয়, তাতেও তিনি তাই করবেন, যা এ চার বছর ধরে করছেন। তিনি এমন প্রেসিডেন্ট যিনি দায়িত্ব নেন না, নেতৃত্ব দিতে অস্বীকৃতি জানান, অন্যদের দোষ দেন, স্বৈরশাসকদের খুশি করেন এবং ঘৃণা ও বিভক্তির আগুনে হাওয়া দেন,” বলেন বাইডেন।

করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে অনলাইনে হওয়া ডেমোক্র্যাটিক পার্টির এবারের জাতীয় সম্মেলনে প্রতিদিনের বক্তারাই ট্রাম্পকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদের জন্য ‘অযোগ্য’, স্বার্থপর এবং মার্কিন গণতন্ত্রের জন্য হুমকি হিসেবে চিত্রিত করেছেন। বাইডেনের বক্তব্যেও ছিল একই সুর।

ডেমোক্র্যাটদের এবারের সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক দুই প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা, বিল ক্লিনটনের পাশাপাশি ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রভাবশালী নেতারা বক্তব্য রাখেন। বক্তব্য রাখেন সাবেক দুই ফার্স্ট লেডি মিশেল ওবাসমা, হিলারি ক্লিনটন, মনোনয়ন দৌড়ে বাইডেনের সঙ্গে লড়াই করা প্রতিদ্বন্দ্বিরা। কলিন পাওয়েল, জন ক্যাসিচসহ  প্রভাবশালী রিপাবলিকানদের অনেকেও এই সম্মেলনে বাইডেনের প্রতি তাদের সমর্থন ব্যক্ত করেছেন। 

বুধবার সম্মেলনের তৃতীয় রাতে বাইডেনের রানিং মেট কমল হ্যারিস রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের নেতৃত্বের কঠোর সমালোচনা করেছিলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান দুই দলের মধ্যে প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ নারী ও প্রথম এশীয় বংশোদ্ভূত হিসেবে মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়া ক্যালিফোর্নিয়ার এ সিনেটর বলেন, “বর্ণবাদের জন্য কোনো টিকা নেই। যতক্ষণ পর্যন্ত না সবাই মুক্ত হবে, ততক্ষণ পর্যন্ত আমরা কেউই মুক্তি পাবো না।”

বাইডেন যখন বক্তৃতা দিচ্ছিলেন, তখন রিপাবলিকান শিবির এক বিবৃতিতে ডেমোক্র্যাট প্রার্থীকে ‘বামদের ঘুঁটি’ হিসেবে অ্যাখ্যায়িত করে।

“দলীয় মনোনয়ন গ্রহণ করার ভেতর দিয়ে জো বাইডেন আনুষ্ঠানিকভাবে উগ্র বামপন্থিদের ঘুঁটিতে পরিণত হলেন। প্রচারণার লগোতে নাম থাকলেও তার সব ধারণাই এসেছে উগ্র সমাজতন্ত্রীদের কাছ থেকে,” বলেছেন রিপাবলিকান শিবিরের মুখপাত্র টিম মুরটাহ।

বাইডেনের বক্তৃতার সময় ডেমোক্র্যাট প্রতিদ্বন্দ্বির দিকে দিকে তীর ছুড়েছিলেন ট্রাম্পও।

“এখন যা বলছে, ৪৭ বছরে এর কোনোটিই করেনি জো। সে বদলাবে না, খালি বকবে,” বলেছেন তিনি।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য