শিরোনাম

[getTicker results="10" label="random" type="ticker"]

আনাস মাদানীর প্রতি মাওলানা ওয়ালিউল্লাহ আরমানের খোলা চিঠি: তামাদ্দুন

 



প্রিয় ভাই!

আমাদের অঙ্গনে এইসময় সবচেয়ে আলোচিত, সমালোচিত, নিন্দিত ও ঘৃণিত নামটি আপনার। গত শুক্রবার আপনার সম্মানিত পিতার মৃত্যুর পর আপনার প্রতি হয়তো কিছুটা সহমর্মিতা তৈরি হয়েছিলো। কিন্তু আজগর আলী হাসপাতালে মিডিয়ার সামনে আপনার ব্রিফিংয়ে ইঙ্গিতমূলক বক্তব্য এবং ফালতু পল্টিবাজ রাকিব কর্তৃক ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্য ও মিছিল সহ আক্রমণাত্মক আচরণের মাধ্যমে কারো কারো মনে আপনার প্রতি জেগে ওঠা শেষ মুহূর্তের সহমর্মিতা পুনরায় ক্ষোভ, রাগ ও ঘৃণায় পরিণত হয়। কোনো মানুষের জন্য এটা স্বস্তিদায়ক হতে পারে না।
এর বহিঃপ্রকাশ ঘটে ফরিদাবাদে খুবই বিব্রতকর ঘটনার মধ্য দিয়ে। সদ্য পিতৃহারা আপনি ছাত্রদের রোষাণলে পড়েন। হাটহাজারীতে আপনার মৃত পিতার জানাযায় অংশগ্রহণের সম্ভাবনাও শেষ হয়ে যায়।
ভাই!
অনেকের ধারণা আপনি অত্যন্ত বুদ্ধিমান এবং ধীরস্থির মস্তিষ্কের মানুষ। কিন্তু সেই তারাই আফসোস করেন যে, আপনি আপনার বুদ্ধিমত্তা ও ধৈর্যকে যদি কল্যাণকর এবং ইতিবাচক কাজে ব্যবহার করতেন, তাহলে আজকে অবস্থা সম্পূর্ণ বিপরীতে থাকতে পারতো! কারণ এখানকার মাটি ও আলো-বাতাস সবসময় উস্তায, শায়খ এবং পীরের সন্তানের প্রতি সহানুভূতি ও শ্রদ্ধা পোষণ করে। আপনার চেয়ে যোগ্যতায় পিছিয়ে থাকা অনেক সাহেবজাদা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, সংস্থা, খানকা এবং দরবারে সম্মানজনক ও গুরুত্বপূর্ণ অবস্থান নিয়ে আছেন। কারণ তাদের দ্বারা আপনার মতো হঠকারিতা ও আত্মঘাতী কর্মকাণ্ড প্রকাশ পায়নি।
প্রিয় ভাই!
পালাবদলের অনিবার্য বাস্তবতায় আপনি কিন্তু এখন আর ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দুতে নেউ। আপনাকে এখন হয়তো অন্য কারো তল্পিবাহক হিসেবে চলতে হবে। কিন্তু দাপটের দিন যে শেষ, এটা নির্দ্বিধায় বলা যায়। বেফাক ও হাইয়াতুল উলইয়ায় আপনি আপনার পদ-পদবি ধরে রাখতে পারবেন কিনা এটা নিয়ে যৌক্তিক সংশয় রয়ে গেছে।
মাওলানা!
‘সৎ সঙ্গে স্বর্গবাস অসৎ সঙ্গে সর্বনাশ’ বাক্যের উৎকৃষ্টতম উদাহরণ আপনি। আপনি আমাদের শায়খের সন্তান হিসেবে আপনার অধঃপতন দেখে আমাদের কষ্ট হয়, করুণা জাগে। কিন্তু পিতার মৃত্যুর সাথে সাথে নিজের ইমেজ ভালো করার সুবর্ণ সুযোগটিও আপনি অপরিণামদর্শী পদক্ষেপে হাতছাড়া করলেন।
প্রিয় ভাই!
এখনো সময় আছে, অতীত কৃতকর্মের জন্য অনুতপ্ত হয়ে প্রকাশ্যে তওবা করুন। আলেমসমাজ হয়তো আপনার অপকর্ম ভুলে গিয়ে শায়খের সন্তান হিসেবে পুনরায় বুকে জড়িয়ে নিবে। কিন্তু যদি ভেবে থাকেন, মরহুম পিতা আর সাবেক প্রতিষ্ঠানের পরিচয়ে এখনো ছড়ি ঘোরানোর সুযোগ পাবেন, তাহলে আপনি বোকার স্বর্গে বাস করছেন।
মাওলানা সাহেব!
ক্ষমতাসীনদের নিকট নখরদন্তহীন, শক্তি থেকে ছিটকে পড়া কারো এক পয়সাও মূল্য থাকে না। হয়তো কেউ কেউ আপনার এই দুঃসময়ে ‘আহা, উহু’ বলে করুণা দেখাবে, সান্ত্বনা দিবে। এর বেশি কারো কাছ থেকে কিছুই পাবেন না আপনি। আর কওমি অঙ্গনতো সেই কবে আপনাকে ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছে! আপনার ভুলভাল পদক্ষেপের প্রতিক্রিয়ায় সৃষ্ট চরম প্রতিকূল পরিস্থিতির কারণে আপনার মহান পিতা অকল্পনীয় লাঞ্ছনা আর দুঃসহ যন্ত্রণা নিয়ে দুনিয়া ছেড়ে বিদায় নিয়েছেন। সুতরাং আশা করব বাস্তবতা সামনে রেখেই পা ফেলবেন।

আমার কথায় কষ্ট নিয়েন না। বরং খোঁজ নিয়ে দেখেন, শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী রাহিমাহুল্লাহর অসংখ্য ছাত্র-শিষ্য ও ভক্ত-অনুরাগীর মনে একই অনুভূতি বিরাজ করছে।

সুত্র: লেখকের ফেসবুক ওয়াল


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য