শিরোনাম

[getTicker results="10" label="random" type="ticker"]

খেলাফত মজলিসের মহাসচিব মাও. মামুনুল হককে সাইমুম সাদীর অভিনন্দন: তামাদ্দুন

 




ইবনে সাবিল: তামাদ্দুন ২৪ ডটকম:বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের নতুন মহাসচিব মনোনীত হয়েছেন মাওলানা মামুনুল হক। আমরা এজন্য তাকে অভিনন্দন জানাচ্ছি। আশা করব তার নেতৃত্বে দল এগিয়ে যাবে, ইসলামী ঐক্য ত্বরান্বিত হবে।

মামুন ভাই এতদিন ঐক্যের জন্য মঞ্চে ময়দানে যে হুংকার দিয়েছেন এখন সময় এসেছে সেই বক্তব্যকে তিনি নিজে বাস্তবায়ন করার জন্য ভুমিকা রাখার। বক্তব্য তো সবাই দেয়,ঐক্যের কথা সবাই বলে, কিন্তু ঐক্যের আচরণ সেভাবে তাদের আচরণে পাওয়া যায়না। আমরা আশা করব এই শুন্যতা পূরণে তিনি বাস্তবভিত্তিক পদক্ষেপ নিবেন।এই ক্ষেত্রে প্রাথমিকভাবে দুই খেলাফত মজলিসকে এক করার উদ্যোগ নিতে পারেন। যদি কাজটা করতে পারেন তাহলে জাতি তাকে শুধু আবেগী বক্তা নয়, দুরদর্শি পলিটিকাল লিডার হিসেবে দেখতে পাবে।

প্রসঙ্গত পাকিস্তানের মাওলানা ফজলুর রহমানের কথা উল্লেখ করতে চাই। ফজলুর রহমান কিন্তু কওমি আলেম হয়েও সেখানকার সকল ইসলামী শক্তিকে সাথে নিয়েই আন্দোলন করেন। তার সাথে যেমন বিভিন্ন ইসলামী দল থাকে তেমনি জামায়াতে ইসলামী ও আহলে হাদীসের লোকজনও থাকে। তিনি সবাইকে নিয়ে চলার একটা যোগ্যতা অর্জন করতে পেরেছেন। এদেশেও তেমন লিডারশিপের চাহিদা রয়েছে।

তুরস্কের এরদোয়ানের ইতিহাসও এরকম। বিগত সংসদ নির্বাচনের সময় বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস এরশাদের সাথে জোট করলে মামুন ভাই তার সমালোচনা করেছিলেন, ব্যাপারটা ছিলো অনেক সাহসিকতাপূর্ণ। আমরা আগামীতেও উম্মাহর কল্যাণে তার ভুমিকা সক্রিয় হোক তা চাইব।

বয়ানের জগত এবং রাজনৈতিক জগত সম্পূর্ণ ভিন্ন। বয়ানে জিন্দাবাদ জুটে, কিন্তু রাজনীতিতে গালাগালিও খেতে হয়। পুলিশের লাঠিচার্জ টিয়ারগ্যাস সহ্য করতে হয়। বয়ানের নিরাপদ মঞ্চ ছেড়ে ঝুকিপূর্ণ রাজনীতিতে স্বাগতই জানাচ্ছি। আপাতত দুই খেলাফত মজলিস একীভূত করার চেষ্টা করুন। আমরা ইনসাফপূর্ণ প্রচেষ্টার পক্ষেই থাকব। তারপর অন্যদেরকে কাছে টানুন। এই জমিনের মানুষের দুর্ভাগ্য, বারবার জনগন ইসলাম চেয়েছে কিন্তু তাদেরকে নেতৃত্ব দেওয়ার মত নেতার অভাব ছিলো এবং আছে। এই অভাব পূরণে যিনিই এগিয়ে আসবেন, তিনিই আগামী দিনের জাতীয় লিডার।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য